দারুচিনি দ্বীপ

‘মা, আমার চশমা? আমার চশমা কোথায় মা?’
শুভ্র হাহাকার করে উঠলো। গতকাল রাতে ঘুমোবার সময় রসময় গুপ্তের চটিবই পড়তে পড়তে যে কোন সময় ঘুমিয়ে পড়েছিল তা শুভ্র খেয়ালই
করেনি। ঘুম হঠাৎ করে ভেঙে যাওয়ার পর পরই তার খেয়াল হলো যে রসময় গুপ্তের বইটি সে জায়গামতন লুকাতে ভুলে গেছে। সে তড়িঘড়ি করে
বিছানায় এদিক ওদিক হাতড়াতে লাগল চশমা আর রসময় গুপ্তের বইটির জন্য। এর মধ্যে আবার বোকার মতন মাকে ডেকে ফেললো সে। মা যদি
দেখতে পান রসময় গুপ্তের বই, তাহলেই খবর আছে।
শুভ্রের মা রেহানা ছেলের ডাক শুনে রুমে ছুটে আসলেন। গাড় মমতা নিয়ে ছেলের দিকে তাকালেন। কি অদ্ভুত ভঙ্গিতেই না বিছানার এদিক সেদিক
সে তার চশমা খুঁজছে। ছেলেটি লুঙ্গিটিও ঠিক মতন পরেনি। তার নুনুটি এই বের হয়তো সেই বের হয় অবস্থা। রেহানা কাছে এসে শুভ্রকে বললেন,
‘কিরে বাবা, চশমা খুঁজে পাচ্ছিস না? চশমা কোথায় রেখেছিস ঘুমোবার আগে?’ ঠিক এমন সময় বাসার কলিং বেলে শব্দ হলো। রেহানা
বললেন, ‘দাঁড়া বাবা, আমি দরজাটা খুলে আসি।’
রেহানা দরজা খুলতেই দেখলেন যে শুভ্রর ক্লাসমেট ইলোরা আর আনুষ্কা এসেছে। ইলোরা রেহানাকে সালাম দিয়ে বলল, ‘খালাম্মা, শুভ্র কি আছে?
আজকে আমাদের দারুচিনি দ্বীপের ট্যুর সংক্রান্ত একটি মিটিং আছে। আমরা এসেছি শুভ্রকে নিয়ে যাবার জন্য।’ রেহানা মৃদু হেসে ওদেরকে ভিতরে
আসার জন্য ইসারা করলেন। তারপর শুভ্রর রুম দেখিয়ে দিয়ে বললেন, ‘যাও মা, তোমরা শুভ্রর রুমে চলে যাও। আর শোনো মা, শুভ্র ওর
চশমাটা খুঁজে পাচ্ছে না। ও তো আবার চশমা ছাড়া কিছুই দেখতে পারে না। তোমরা কি ওকে ওর চশমাটা খুঁজে পেতে একটু হেল্প করবে? আমি
তাহলে এ ফাঁকে আমার অন্য কাজগুলো সেরে নিতে পারবো।’
আনুষ্কা হেসে বলল, খালাম্মা, আপনি কোনো চিন্তা করবেন না। আমরা খুঁজে দিব। বলে আনুষ্কা আর ইলোরা শুভ্রর রুমের ভিতরে চলে গেল।
ওদের দেখেই শুভ্রও বলল, ‘আরে তোমরা? সরি, আমি ঘুম থেকে উঠতে একটু দেরি করে ফেলেছি। পতকাল রাতে ঘুমাতে একটু বেশ দেরি
করে ফেলেছিলাম। একটা বই পড়ছিলাম।’
আনুষ্কা মৃদু স্বরে জিজ্ঞাস করলো, ‘কি বই শুভ্র?’
শুভ্র যেন বিব্রত হয়ে বলল, না না, মানে, ওটা হলো ফিজিক্সের একটা গুরুত্বপূর্ন বই।
আনুষ্কা বলল, ও আচ্ছা।
শুভ্র বলল, আচ্ছা, তোমরা একটু বসো, আমি আমার চশমা খুঁজে পাচ্ছি না। আগে ওটা খুঁজে নেই।
ইলোরা বলল, হ্যাঁ, তোমার মায়ের কাছে শুনলাম তুমি নাকি চশমা খুঁজে পাচ্ছিলে না? দেখি, আমরাও খুঁজে দেখি। বলে ইলোরা আর আনুষ্কাও
শুভ্রের রুমের ভিতরে এদিক ওদিক চশমা খুঁজতে লাগল। এমন সময় বিছানার উপরে পাতলা আকারের একটা বই পেয়ে ইলোরা সেটি হাতে নিতেই
তার মুখের চেহারা যেন বদলে গেলো। সে চোখ কপালে তুলে বলল, ‘শুভ্র, তুমি রসময় গুপ্তের বই পড়!’
রসময় গুপ্তের নাম শুনে আনুষ্কার চেহারার মধ্যেও যেন দুষ্ট হাসি আর এক ধরনের কৌতুহল জেগে উঠল। সে মৃদু হেসে বলল, যাক বাবা,
আমাদের কানা বাবা শুধু পড়ালেখার বইই না, রসময় গুপ্তও পড়ে। একেবারে নিরস ধরনের ছেলে সে না।
শুভ্র যেন ভীষণভাবে বিব্রত হয়ে অপ্রস্তুত ভাবে বলতে লাগল, না না, ওটা আমার না। এ বই আমার কোথা থেকে এসেছে আমি জানি না।
ইলোরা আর আনুষ্কা শুভ্রের এরকম অপ্রস্তুত অবস্থা দেখে হাসতে লাগল।

  1. No trackbacks yet.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: